Banlga PDF Book

100+ শেয়ার বাজার বই PDF Download For *Free* | NEW শেয়ার বাজার বই PDF

শেয়ার বাজার বই: বাংলা ভাষা আমার খুব প্রিয় ভাষা,শেয়ার বাজার বই pdf ভীষণ প্রিয় আমার। অবসর সময়ে বাংলা লেখকদের এই অসাধারণ সৃষ্টিগুলি পড়ি এবং নিজেকে আবিষ্কার করি নতুন উদ্যোমে,নতুন রূপে। কখনো কখনো পৌঁছে যাই রূঢ় বাস্তব অথবা কাল্পনিক জগতে। তার মধ্যে আমার একটা প্রিয় বই হলো শেয়ার বাজার pdf

শেয়ার বাজার বই PDF Download
শেয়ার বাজার বই PDF Download

শেয়ার বাজার বই PDF Download

  1. বইয়ের নাম: শেয়ার বাজার বিনিয়োগঃ টেকনিক্যাল ও ফান্ডামেন্টাল এনালাইসিস
  2. লেখকঃ মোহাম্মদ আনোয়ার আলী
  3. ফাইল সাইজ: ৮ মেগাবাইট
  4. ফরম্যাট: পিডিএফ ডাউনলোড

Download

.শেয়ার বাজার বই pdf : তো সব সময় বই কিনে পড়া হয় না বা কিছু বইতো আর কিনতে পাওয়াও যায় না তখন ভরসা ইপাব,পিডিএফ, মোবি ফাইলগুলি ঐ মুটোফোনে পড়ার জন্য। এইভাবে ইন্টারনেটের জগৎ ঘেঁটে এগুলি সংগ্রহ করতে করতে সেগুলোর পরিমাণ অনেকটাই বাড়িয়ে ফেলেছি, তাই ভাবলাম সেগুলি আপনাদের সঙ্গে কিছুটা শেয়ার করা যাক।(শেয়ার বাজার বই)

Download

শেয়ার বাজার বই: ইনশাল্লাহ আপনারা আমাদের এই পোস্টটি থেকে সকল রকমের হেল্প পাবেন। বই হয়তবা আপনার সবচেয়ে পছন্দের বিষয়। তাই আপনারা আমাদের এই ওয়েবসাইটে এসেছেন। তাই না, আপনাদেরকে সঠিক তথ্য দেওয়া আমাদের কাজ। তাই চলুন দেখি আসি শেয়ার বাজার বই

শেয়ার বাজার ও মুদ্রা বাজারের মধ্যে পার্থক্য

মূলধন বাজার বা শেয়ার বাজার ও মুদ্রা বাজারের মধ্যে যে পার্থক্যটি বিদ্যমান সেটি হলাে সময় পরিধির পার্থক্য। মুদ্রা বাজার হচ্ছে স্বল্পকালের বাজার, সেখানে খুবই অল্প সময়ের জন্য লেনদেন হয়। যেমন : ইন্টার ব্যাংক মানি মার্কেটে বাজারের সুদ বা লাভ নির্ভর করে মুদ্রার চাহিদা ও সরবরাহের ওপর। এখানে অনূর্ধ্ব এক বছরের জন্য পুঁজি সরবরাহ করা হয়। আর শেয়ারবাজার বা পুঁজি বাজারে বিনিয়ােগ হবে বেশ কিছু সময়ের জন্য।

বিনিয়োেগ করে কোম্পানির শেয়ার ক্রয় করা হয় এবং কোম্পানি লাভ করলে বছর বছর বােনাস শেয়ার দেবে। এই বাজারে ঝুঁকির বিষয়টি বেশি থাকে। ঝুঁকি ওঠা-নামা করে থাকে শেয়ারের বাজারদরের উত্থান-পতন থেকে। এখানে মােটামুটি ৫ বছর বা তারও বেশি মেয়াদের জন্য পুঁজি সরবরাহ করা হয়ে থাকে।

শেয়ারবাজারের প্রকারভেদ ও তাদের অবস্থান

বাংলাদেশের দুটি স্থানে শেয়ারবাজারের কেনাবেচা হয়। এর একটি ঢাকার বাণিজ্যিক এলাকা মতিঝিলে আর অন্যটি বন্দরনগরী চট্টগ্রামের আগ্রাবাদে।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ : ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ ১৯৫৪ সালের ২৮ এপ্রিল ইস্ট পাকিস্তান স্টক এক্সচেঞ্জ এসােসিয়েশন লিমিটেডে হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করে। ১৯৫৬ সালে এর আনুষ্ঠানিক লেনদেন শুরু হয়। ১৯৬২ সালের ২৩ জুন এর নাম পরিবর্তন করে হয় ইস্ট পাকিস্তান স্টক এক্সচেঞ্জ লি.।

১৯৬৪ সালের ১৩ মে আবার এর নাম পরিবর্তন করে রাখা হয় ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ দেশের প্রধান পুঁজিবাজার। এখানে অত্যাধুনিক স্বয়ংক্রিয় প্রযুক্তির মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের সিকিউরিটিজ (শেয়ার ডিবেঞ্চার, মিচ্যুয়াল ফান্ড এবং বন্ড) লেনদেন হয়। বর্তমানে এ বাজারে সাড়ে তিনশরও বেশি সিকিউরিটিজের লেনদেন হয়। যার মূল্যমান ১০০০ বিলিয়নেরও বেশি এবং দেশের জিডিপির প্রায় ১০ শতাংশ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.